শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কাপাসিয়ার টোক রণেন্দ্র স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন: যারা অভিভাবক প্রতিনিধি হলেন গাজীপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে সাংবাদিকে প্রাণনাশের হুমকি, গাছপালা কেটে ব্যাপক ক্ষতিসাধন নকলা কল্যাণ ফোরামের উদ্যোগে  তিন শতাধিক পরিবার পেল কোরবানির মাংস নকলায় বালির নিচ থেকে ১ কৃষকের মরদেহ উদ্ধার কাপাসিয়ার সিঙ্গুয়ায় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান  নকলায় শিক্ষার্থীরা পেলো সংসদ উপনেতা মতিয়া চৌধুরীর ঈদ উপহার সরকারী স্কুলের ভূমি অধিগ্রহণের টাকা আত্নসাৎ ফেরত না দিতে ভিন্ন কৌশল শ্রীবরদীর বন বিভাগে ৯ কোটি টাকা হরিলুটের অভিযোগ, বন কর্মকর্তার নামে মামলা নান্দাইলে সাংবাদিকের উপড় সন্ত্রাসী হামলা, হাসপাতালে ভর্তি কাপাসিয়ার টোকে মসজিদভিত্তিক শিশু শিক্ষার মনিটরিং কমিটির সভা অনুষ্ঠিত 

পুলিশ অটোর গ্লাস ভেঙে রক্তাক্ত করে দিলো, আমার দোষ অফিসে সময় মতো যেতে চাচ্ছিলাম | সময়ের দেশ

শফিউল আলম শফি, সহ-সম্পাদক সময়ের দেশ:
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১
  • ৫৬০ বার পড়া হয়েছে

পুলিশ অটোর গ্লাস ভেঙে রক্তাক্ত করে দিলো, অটোর যাত্রীসহ আমার ও চালকের। আমার দোষ অফিসে সময় মতো যেতে চাচ্ছিলাম।

ঘটনাটি আজ বুধবার ২৩ জুন সকালের। পেশাগত দায়িত্ব পালনে জন্য গাজীপুর মহানগরের চান্দনা চৌরাস্তা থেকে জয়দেবপুর সড়কে যাচ্ছিলাম। মহামারী করোনার কারনে গাজীপুর জেলা গত ২২ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করে সরকার প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

কিন্তু সরকারিভাবে জারি হওয়া প্রজ্ঞাপনে জরুরী পরিসেবায় আমাদের কর্মস্থল খোলার মধ্যে রয়েছে।

নিজস্ব পরিবহন না থাকায় এবং গণপরিবহন বন্ধ থাকায় অটো দিয়ে জয়দেবপুর চন্দনা চৌরাস্তা থেকে গাজীপুর শহরের জয়দেবপুরের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলাম আজ সকালে। অটোতে আরো যাত্রী ছিল। আমি ছিলাম চালকের সাথে সামনে বসা। কিছুদূর এগুতেই চলন্ত অটোর সামনের গ্লাসে অতর্কিত আঘাত দিয়ে সামনের ভেঙ্গে ফেললো এক পুলিশ সদস্য।

আমি চালকের সাথে সামনে বসেছিলাম,
প্রচন্ড গতিতে ভাঙ্গা গ্লাসের টুকরা হাত সহ সারা শরীরের ঢুকে গেলো আমার ও অটো চালকের। সাথে সাথে রক্তাক্ত জখম হলাম আমারা ও অটো চালক।

রক্ত ঝরা শুরু হলো আমাদের ক্ষত অংশ থেকে।

নিরুপায় হয়ে তাকিয়ে রইলাম।

প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ছুটে গেলাম। শরীরের রক্তাক্ত জখম ড্রেসিং করালাম। ইনজেকশন পুশ করা হলো।

সরকারিভাবে জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে জরুরী পরিসেবার আওতায় আমাদের কর্মস্থলে যাওয়াটা ছিল বৈধ। পুলিশ সদস্যের দায়িত্ব ছিল সহযোগিতা করা।

আমাদের জান ও মালের ক্ষতি সাধন করা নয়।

আমরা বেআইনি ও অবৈধ ভাবে যাচ্ছিলাম না, আমাদের পরিচয় পত্র ও পরিচয় চাওয়া হয়নি। হঠাৎই পুলিশ সদস্য অতর্কিত হামলা চালায়।

এখন প্রশ্ন হলো!!

পুলিশ বাহিনীর কাজ কি ? জনসাধারণের  জান ও মালের ক্ষতি সাধন করা ?

নাকি কি জনসাধারণের জান ও মালের নিরাপত্তা প্রদান করা ?

পুলিশের কাজ দেশের জনসাধারণের জান ও মালের নিরাপত্তা প্রদান করা। জান ও মালের ক্ষতি সাধন করা নয়।

পুলিশ যে ক্ষতি করে দিল আমার ও সহযাত্রীসড় অটোচালকের জানের এবং দরিদ্র অটো চালকের অটোর ভেঙে, এর দায় দায়িত্ব কে নিবে?

একজন গণমাধ্যমকর্মী হয়ে পুলিশ সদস্যদের প্রতি বিনীত আহবান জানাই, আরো দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেওয়ার। দেশের মানুষের জান-মালের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত পুলিশ বাহিনীর সুনাম ক্ষুন্ন হয় এমন কিছু না করার।

আজ আমরা গণমাধ্যমকর্মীরাও মহামারী করোনায় নিজের জীবনকে বাজি রেখেই ঘরে বসে না থেকে দেশ ও দশের জন্য পথে নেমেছি।

আসুন সবাই মিলে সুন্দর দেশ গড়ি।

# সম্পাদকীয় কলাম।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৩ অপরাহ্ণ
  • ১৬:৪০ অপরাহ্ণ
  • ১৮:৫২ অপরাহ্ণ
  • ২০:১৮ অপরাহ্ণ
  • ৫:১১ পূর্বাহ্ণ
©2020 All rights reserved
Design by: POPULAR HOST BD
themesba-lates1749691102